>
>
>

ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ

  প্রতি বছর অসংখ্য মহিলা ব্রেস্ট ক্যান্সারে আক্রান্ত হন সুতরাং এর লক্ষণ গুলো সম্পর্কে জানা থাকলে তা শুরু থেকে চিকিৎসা গ্রহন করে ভাল থাকতে রোগীকে সাহায্য করবে। গর্ভাশয়ের ক্যান্সারের পর মহিলারা ব্রেস্ট ক্যান্সারেই সবচেয়ে বেশী আক্রান্ত হন এবং পরিসংখানে দেখা গেছে যে মানুষের শরীরে যেসব ক্যান্সার হয় তার মধ্যে ৭%-১০% ই হল ব্রেস্ট ক্যান্সার। সাধারণত ৪০-৬০ বছর বয়সে মহিলারা এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হন।
  

  ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ কি?

  
  ১. অনেক সময় ব্রেস্ট ক্যান্সারের প্রাথমিক অবস্থায় ব্রেস্টে কোন ডেলা বা মাংসপিণ্ড দেখা না গেলেও রোগীরা বিভিন্ন রকম অস্বস্তি বোধ করেন। যেমন মেনোপোজের পরে স্তন, কাঁধ বা পিঠে হালকা ব্যথা। অনেকসময় বগলেও ব্যথা হতে পারে।
  
  ২. প্রাথমিক অবস্থায় স্তনের অভ্যন্তরে খুব ছোট আকারের ডেলা অনুভূত হতে পারে। এই ডেলাগুলো এক জায়গায় না থেকে কিছুদিন পর পর স্তনের বিভিন্ন জায়গায় সরে যায়। সাধারণত এই ডেলা বা দানা গুলোতে কোন ব্যথা থাকেনা তবে কিছু কিছু রোগীর ক্ষেত্রে হালকা ব্যথা বা খচখচে ভাব হতে পারে।
  
  ৩. স্তনে বিভিন্ন ধরনের পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। যেমন কমলার খোসার মত চামড়া কুঁচকে যাওয়া বা ফুলে ওঠা, পুঁজ জাতীয় কিছু বের হওয়া, রঙ পরিবর্তন হওয়া ইত্যাদি অস্বাভাবিক লক্ষণ দেখা যায়।
  
  ৪.  নিপল্‌ এর আশপাশের জায়গা সংকুচিত হয়ে যায়। নিপল এ অসামঞ্জস্যতা দেখা যায় ও মোটা হয়ে যায়, ব্রেস্ট এর চামড়ায় ছোট ছোট ছিদ্রের মত দেখা যায়।
  
  ৫.নিপল্‌ থেকে পুঁজ বা ঘন তরল জাতীয় কিছু বের হতে পারে এক্ষেত্রে দ্রুত পরবর্তী পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে যেতে হবে।
  
  ৬. লিম্ফ নোড বা লসিকা গ্রন্থি ফুলে যেতে পারে। সাধারণত শেষ পর্যায়ের দিকে এই লক্ষণটি দেখা যায়।
  

  নিজে যেভাবে পরীক্ষা করতে পারেনঃ

  
  ১. হাতের চার আঙুল দিয়ে ঘরির কাঁটা চক্রাকারে ঘোরার মত ব্রেস্ট পরীক্ষা করতে পারেন যে কোন ডেলা বা মাংশ পিণ্ড অনুভূত হয় কিনা।
  
  ২. লম্বালম্বি ভাবেও হাতের চার আঙুল দিয়ে এই পরীক্ষাটি করতে পারেন।
  
  ৩. দুই ব্রেস্ট এর মাঝখানেও চার আঙুল দিয়ে এই পরীক্ষা গুলো করতে হবে। এরপর নিপল চেপে দেখতে হবে রক্ত বা পুঁজ জাতীয় কিছু নির্গত হয় কিনা। এ ধরনের কিছু নির্গত হলে দেরি না করে সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।
  
  মডার্ন ক্যান্সার হসপিটাল গুয়াংজৌ আপনাকে সতর্ক করে দিতে চায় যে ব্রেস্ট ক্যান্সারের যে কোন লক্ষণ দেখা মাত্রই দ্রুত পরবর্তী পরীক্ষা গুলো করিয়ে নিতে হবে এবং উপযুক্ত ট্রিটমেন্ট শুরু করতে হবে। মনে রাখবেন, প্রাথমিক পর্যায়ে ব্রেস্ট ক্যান্সারের চিকিৎসা শুরু করা গেলে সম্পূর্ণ ভাল হবার সম্ভাবনা থাকে।
scrollTop

কান্সারের ধরণ

মলাশয় ক্যান্সার
ফুসফুস কান্সার
গর্ভাশয়ের ক্যান্সার
পাকস্থলীর ক্যান্সার
বাকযন্ত্রের কান্সার
খাদ্যনালীর ক্যান্সার
পাকস্থলির ক্যান্সার
মস্তিস্কের ক্যান্সার
লিভার কান্সার
হাড়ের ক্যান্সার
স্কীন ক্যান্সার
যোনি ক্যান্সার
পিত্তকোষ
প্রোস্টেট ক্যান্সার
লিম্ফোমা
অগ্ন্যাশয় ক্যান্সার
এন্ডওমেটরিয়াল ক্যান্সার
থাইরয়েড ক্যান্সার
পিত্তনালীর ক্যান্সার
মুখের ক্যান্সার
কিডনি ক্যান্সার
একাধিক মেলোমা
জিহ্বা ক্যান্সার
মূত্রাশয় ক্যান্সার
ডিউড্রেনাল ক্যান্সার
সফট টিস্যু ক্যান্সার
অ্যাড্রেনাল ক্যান্সার
Nasopharyngeal ক্যান্সার
testicular ক্যান্সার
লিউকেমিয়া
মলদ্বারে ক্যান্সার
চোখের কান্সার

প্রযুক্তি ও যন্ত্রপাতি
জাদুকরী স্টিম সেল
গ্রীন কেমোথেরাপি-ক্যান্সার চিকিৎসায় এক অনন্য সংযোজন
পেট/সিটিঃ চিত্রের সাহায্যে কোষের বিপাক প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণের একটি প্রযুক্তি যার মাধ্যমে
টার্গেটেড জীন থেরাপিঃ ক্যান্সার নিরাময়ের একটি নতুন চিকিৎসা
ফোটন নাইফ : ত্রিমাত্রিক কনফর্মাল রঁজনরশ্মি দ্বারা চিকিত্সা ------ একাধিক ক্ষেত্র প্রযোজ্য, একত

খবর ও ঘটনা
ব্যক্তিগত প্রোফাইল
  বোয়াই অ্যান্টিক্যান্সার ক্লাব সদস্য সম্মেলন মডার্ণ ক্যান্সার হসপিটাল গুয়াংজৌ থেকে সফল ভাবে চিকিৎসা নিয়ে আসা রোগীদের সম্মেলন
চট্টগ্রামে মিনিম্যালি ইনভ্যাসিভ টার্গেটেড ক্যান্সার থেরাপি প্রযুক্তি সেমিনার
ক্যান্সার চিকিৎসায় নতুন আশা মিনিম্যালি ইনভ্যাসিভ টার্গেটেড ক্যান্সার থেরাপি প্রযুক্তি সেমিনার
চট্টগ্রামে চায়না এমডিটি বিশেষজ্ঞ দলের দ্বিতীয় সেমিনার অনুষ্ঠিত